Breaking News

Recent Posts

উন্নয়নে সিংড়া রাতে প্রায় ৫১লাখ টাকা ব্যয়ে নাটোর-বগুড়া মহাসড়কের শেরকোল হইতে কংশপুর পর্যন্ত ১.১৭০ কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী Zunaid Ahmed Palak এমপি আলোকিত হলো শেরকোল ইউনিয়নের নীলচরা গ্রামের ২৮টি পরিবার রাতে প্রায় ৩ লাখ ২৬ হাজার টাকা ব্যয়ে উপজেলার শেরকোল ইউনিয়নের ০.৩২৬কিলোমিটারে নীলচরা গ্রামের ২৮টি পরিবারের মাঝে নতুন বিদ্যুত সংযোগের উদ্বোধন করেন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী Zunaid Ahmed Palak ভাই।

Read More »

বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও অপরিহার্য যোগাযোগ মাধ্যম হচ্ছে ‘মোবাইল ফোন’। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বাংলাদেশে মোট মোবাইল নিবন্ধনকারীর সংখ্যা ১২৯.৫৮ মিলিয়ন। মোবাইল ফোনকে যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করার পাশাপাশি এর বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশনের ব্যবহারও বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বর্তমানে প্রায় ২ বিলিয়ন মানুষ মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করছে। সারা বিশ্বে মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে বাংলাদেশেও এর সুদূরপ্রসারী প্রভাব পড়েছে। তার প্রধান কারণ মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহারের জনপ্রিয়তা। বাংলাদেশে মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৬৩ মিলিয়ন এর বেশি। (সূত্র: বিটিআরসি) ‘জাতীয় মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন পুরস্কার ২০১৭’ উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানানো হয়। বুধবার (১২ এপ্রিল ২০১৭) আইসিটি বিভাগের কনফারেন্স রুমে আয়োজিত এই সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, এমপি। বক্তব্য রাখেন আইসিটি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী, বেসিসের সভাপতি মোস্তাফা জব্বার ও বিডিওএসএনের সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান। বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মকে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের সাথে সম্পৃক্ত করে সারা বিশ্বের বিলিয়ন ডলারের মোবাইল অ্যাপ এর বাজারে প্রবেশের জন্য মোবাইলভিত্তিক বিভিন্ন উদ্যোগের সাথে সম্পৃক্ত করে উৎসাহ ও সহায়তা দিতে দ্বিতীয়বারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ‘জাতীয় মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন পুরস্কার ২০১৭’। আইসিটি বিভাগ ও ওয়ার্ল্ড সামিট অ্যাওয়ার্ড এর যৌথ উদ্যোগে জাতীয় মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন পুরস্কার ২০১৭ আয়োজিত হচ্ছে। এতে জাতীয় পুরস্কার বিজয়ীরা ওয়ার্ল্ড সামিট মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন পুরস্কারের গ্লোবাল প্রতিযোগিতার জন্য সরাসরি মনোনীত হবেন। সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ আয়োজিত এই প্রতিযোগিতার সহযোগী গুগল ডেভেলপার গ্রুপ সোনারগাঁও এবং গুগল ডেভেলপার গ্রুপ বাংলা। দেশীয় প্রতিষ্ঠান কর্তৃক নির্মিত সেরা মোবাইল কনটেন্ট ও উদ্ভাবনী মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের প্রাপ্য স্বীকৃতি প্রদানই এই আয়োজনের মূল উদ্দেশ্য। প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার বাংলাদেশের তরুণ-তরুণীদের মেধা ও মননকে পৃষ্ঠপোষকতা ও সহযোগিতা করার মাধ্যমে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পৌঁছে দিতে অঙ্গীকারাবদ্ধ। তাই, দেশ সেরা মোবাইলভিত্তিক উদ্যোগগুলোকে এগিয়ে দিতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ দ্বিতীয়বারের মত আয়োজন করছে জাতীয় মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন পুরস্কার ২০১৭। আগামী ১৯ এপ্রিল পর্যন্ত এই প্রতিযোগিতার জন্য আবেদন করা যাবে। নিবন্ধন ও মনোনয়ন জমা দেয়ার জন্য http://appaward.ictd.gov.bd/ এই লিংকে প্রবেশ করতে হবে। গত ৩ মার্চ ২০১৭ তারিখ হতে এই পুরস্কারে অংশগ্রহণের জন্য আহবান জনানো হয়। মূলত নতুন অ্যাপ বিশেষ করে তরুণদের করা ইনোভেটিভ প্রকল্প এতে আশা করা হচ্ছে। যেখান থেকে অন্তত কয়েকটি অ্যাপ যেন বড় পরিসরে নিজেকে তুলে ধরার সুযোগ পায়। এ পর্যন্ত (১১.০৪.২০১৭) ৮টি ক্যাটাগরিতে সর্বমোট ২৯৩ টি অ্যাপ জমা পড়েছে। ক্যাটাগরিগুলো হচ্ছে Entertainment & Life Style, Business & Commerce, Media & News, Tourism & Culture, Environment &Health, Inclusion & Empowerment, Learning & Education, Government & Participation। প্রতিটি ক্যাটাগরি হতে ৩ জন করে মোট ২৪ জন অ্যাপ নির্মাতাকে পুরস্কৃত করা হবে। এসব ক্যাটাগরিতে মোবাইল ও ডিজিটাল কনটেন্ট প্রস্তুতকারী কোম্পানি, ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান অংশ নিতে পারবে। জমাকৃত উদ্ভাবনী অ্যাপগুলোর মধ্যে যথেষ্ট বৈচিত্র রয়েছে। এর মধ্যে একটা বড় অংশ আমাদের চারপাশের সমস্যাগুলো নিয়ে কাজ করছে যার মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের মোবাইলভিত্তিক উদ্যোগ, যেমন: এসএমএস ভিত্তিক সেবা, আইভিআর, অ্যাপ্লিকেশন, গেইম ইত্যাদি। এখন শুরু হচ্ছে বাছাই প্রক্রিয়া। আগামী ২২ এপ্রিল বাছাই প্রক্রিয়াটি চূড়ান্ত করা হবে। পুরস্কার বিতরণের মূল আয়োজন Grand Award Evening আয়োজন করা হবে আগামী ৪ মে, কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে। দিনব্যাপী আয়োজনে এক হাজার তরুণ অ্যাপ ডেভেলপার অংশ নেবে বলে আশা করা হচ্ছে। সেরা অ্যাপকে স্বীকৃতি জানানোর পাশাপাশি বেশ কিছু নতুন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে এই প্ল্যাটফরম থেকে। এর মধ্যে অনুষ্ঠানের দিন দিনব্যাপী থাকবে ন্যাশনাল মোবাইল অ্যাপের সম্ভাবনা নিয়ে সেমিনার। এতে বেশ কিছু আলাদা সেশন থাকবে। টেকনিক্যাল সেশনের পাশাপাশি সফলদের গল্প শোনা, অ্যাপ তৈরিতে বাংলাদেশের অবস্থান ও সম্ভাবনার জায়গাগুলোও তুলে ধরা হবে। এছাড়া থাকবে মোবাইল অ্যাপ প্রদর্শনী। দেশের সেরা ২০টি অ্যাপ তাদের সেবা নিয়ে উপস্থিত থাকবে। অ্যাপগুলো নতুনদের জন্য তাদের অভিজ্ঞতা যেমন শেয়ার করবে একই সাথে ব্যবহারকারীরাও এগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন। উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত ১ম জাতীয় মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন পুরস্কার বিজয়ী ৮টি দল বিশ্বের ডিজিটাল কনন্টেটের সব থেকে সন্মানজনক স্বীকৃতি ওয়ার্ল্ড সামিট অ্যাওয়ার্ড মোবাইল পুরস্কারের গ্লোবাল প্রতিযোগিতার জন্য সরাসরি মনোনীত হয়। আন্তর্জাতিক ওই প্রতিযোগিতায় জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত ক্রিটিকালিংক মোবাইল অ্যাপ স্বাস্থ্য বিভাগে বিজয়ী হয়। এ বছরও বাংলাদেশ থেকে প্রাপ্ত মনোনায়ন যাচাই-বাছাই করবে জুরি বোর্ড। আগামী অক্টোবরে আটটি ক্যাটেগরি থেকে আটজন বিজয়ী নির্বাচন করা হবে এবং মনোনীত করা হবে ওয়ার্ল্ড সামিট অ্যাওয়ার্ড মোবাইল পুরস্কারের গ্লোবাল প্রতিযোগিতার জন্য । ওয়ার্ল্ড সামিট অ্যাওয়ার্ড মোবাইল পুরস্কারঃ তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে সমাজের উন্নয়নে অবদানের জন্য ২০০৩ সাল থেকে অস্ট্রিয়াভিত্তিক এই সংস্থা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে সন্মানসূচক এই অ্যাওয়ার্ড দিয়ে আসছে। সন্মানজনক এই অ্যাওয়ার্ডের জুরি বোর্ডে ইতালি, ব্রাজিল, তুরস্ক, ভারত, অস্ট্রিয়া, বাহারাইন, বুলগেরিয়া, ডেনমার্ক, ইজিপ্ট, জার্মানি, বাংলাদেশ, গুয়েতেমালা, কেনিয়া, ইরান, থাইল্যান্ড, কুয়েতসহ বিশ্বের ৫০ দেশের শীর্ষ তথ্যপ্রযুক্তি ব্যক্তিত্ব জুরিবোর্ডে রয়েছেন।

Read More »

শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিদের সাথে প্রতিমন্ত্রী পলকের বৈঠক, গুগল মার্চেন্ট একাউন্ট চালুর উদ্যোগ, ফেসবুক ডেভেলর্পাস কনফারেন্সে নির্বাচিত স্টার্ট-আপদের জন্য সুযোগ সৃষ্টি, শীঘ্রই শুরু হবে পেপ্যাল-জুম এর কার্যক্রম প্রযুক্তি দুনিয়ার আতুড় ঘর বলে খ্যাত যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালীতে ব্যাপক সাড়া জাগালেন বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদ পলক। পলক সম্প্রতি সিলিকন ভ্যালীতে শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিদের সাথে একাধিক বৈঠকে মিলিত হওয়ার পর দেশে ফিরে এ সংক্রান্ত তথ্য জানান। প্রতিমন্ত্রী পলক মার্চের ৩১ তারিখ থেকে এপ্রিলের ২ তারিখ পর্যন্ত সিলিকন ভ্যালীতে ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া বার্কলে, ফেসবুক, গুগল, নুয়ান্স কমিউনিকেশন্স, পেপ্যাল-জুমসহ একাধিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের সাথে আলাদা আলাদা দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হন। ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া বার্কলে(ইউসি বার্কলে/ University of California, Berkeley) এর কলেজ অব ইঞ্জিনিয়ারিং এর ডিন, এস শংকর শাস্ত্রী (S. Shankar Sastry) নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দলের সাথে প্রতিমন্ত্রী পলকের নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দলের দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয় বিগত ৩১ মার্চ। বৈঠকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ ইউসি বার্কলে’র ইনোভেশন ফর ফিউচার হাব এ অংশীদারিত্বের আগ্রহ প্রকাশ করলে ইউসি বার্কলে তাতে সম্মতি প্রদান করেন। এছাড়াও, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং ইউসি বার্কলে দু’পক্ষই গবেষণা ও উন্নয়ন, ডেটা এনালাইটিক্স ইত্যাদি খাতে ‘নলেজ পার্টনার’ হিসেবে কাজ করতে এবং প্রযুক্তি স্থানান্তরে পারস্পরিত অংশীদার হতে ঐকমত্য পোষণ করেন। পলকের নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দল পরে গুগলের উইলসন এল হোয়াইট( Wilson L. White), সিনিয়র কাউন্সিল, পাবলিক পলিসি’র নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দলের সাথেও এক দ্বি-বৈঠকে মিলিত হন। বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী পলক গুগল প্রতিনিধি দলকে অবহিত করে বলেন, বাংলাদেশী তরুণ-তরুণীরা প্রযুক্তি খাতে বিশেষত ডেভেলপার হিসেবে সুনামের সাথে কাজ করলেও বাংলাদেশে গুগল মার্চেন্ট একাউন্ট (Google Merchant Account) চালু না থাকার ফলে তারা তাদের আয়কৃত অর্থ স্থানান্তর করতে পারছে না। তিনি এ সময় বাংলাদেশে গুগল মার্চেন্ট একাউন্ট চালুর আহবান জানান এবং গুগল কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ও যথাযথ উদ্যোগ নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। বৈঠকে গুগলের সিনিয়র কাউন্সিল উইলসন এল হোয়াইট প্রতিমন্ত্রী পলককে অবহিত করে বলেন, গুগল বাংলাদেশে গুগল লঞ্চপ্যাড( Google Launchpad) ও গুগল ফর অন্ট্রাপ্রেনিওর ( Google for Entrepreneurs) কার্যক্রম চালু করতে আইসিটি ডিভিশনের সাথে সহযোগী হিসেবে কাজ করতে আগ্রহী। এ সময় উভয় পক্ষ বাংলাদেশী স্টার্ট-আপদের জন্য গুগলের স্টার্ট-আপ টুল্সগুলো বিনামূল্যে ব্যবহারের সুযোগ করে দিতে এবং সরকারের ইনোভেশন ডিজাইন এন্ড অন্ট্রাপ্রেনিওরশীপ একাডেমী(আইডিয়া) প্রকল্পে প্রয়োজনীয় কারিগরি সহযোগীতা বিনিময়ে সম্মত হন। পরে গুগলে কর্মরত বাংলাদেশী গুগলারদের (গুগল কর্মীদের গুগলার হিসেবে সম্বোধন করা হয়) সাথে পলক একান্ত আলাপচারিতায় মিলিত হন। এ সময় বাংলাদেশী গুগলাররা ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মযজ্ঞের সাথে একযোগে কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন এবং প্রতিমন্ত্রী গুগলারদেরকে মাতৃভূমির প্রতি তাদের অনুরক্তির জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। এদিকে প্রতিমন্ত্রী পলক ফেসবুকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইমি আর্চিবং (Ime Archibong) এর নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দলের সাথে নির্ধারিত দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হন। ফেসবুক ভাইস প্রেসিডেন্ট ইমি আর্চিবং বৈঠকে প্রতিমন্ত্রীকে জানান, ‘ফেসবুক এ্যাড বিলিং’ ব্যাংকিং চ্যানেলে লেনদেনে তারা কাজ করছে। এ সময় এফ-কমার্স(ফেসবুক কমার্স), ডিজিটাল মার্কেটিং প্রমোশন ও আইডিয়া প্রকল্পে পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করতে দু’পক্ষ মতৈক্যে পৌঁছান। এছাড়াও, ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশী জনপ্রতিনিধিদের একাউন্ট ভেরিফাই করতে সার্বিক সহযোগিতা প্রদানের অঙ্গীকার ব্যক্ত করে এবং বাংলাদেশের সরকারি অফিসগুলোতে ফেসবুক ওয়ার্কস্পেস চালু, নির্বাচিত দেশীয় স্টার্ট-আপদের ফেসবুক ডেভেলর্পাস কনফারেন্সে অংশগ্রহণের সুযোগ প্রদান এবং আগামী মে মাসে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ‘সোস্যাল মিডিয়া এক্সপো’-তে পার্টনার হওয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করে। অ্যাপল ও স্যামসং এর ভাষা গবেষণা সহযোগী বহুজাতিক সফটওয়্যার উন্নয়নকারী প্রতিষ্ঠান ‘নুয়ান্স কমিউনিকেশন্স’ (Nuance Communications) এর প্র্রতিনিধি দলের সাথে আলাদা বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী পলক ন্যাচারাল ল্যাঙ্গুয়েজ প্রসেসিং, স্ক্রীন রিডিং, স্পিচ-টু-টেক্সট, টেক্সট-টু-স্পিচ, বাংলা করপাস নিয়ে কাজ করার আহবান জানালে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ও সিইও পল রিচি (Paul Ricci) জানান, নুয়ান্স কমিউনিকেশন্স উল্লেখিত কাজে আইসিটি ডিভিশনের সাথে একযোগে কাজ করার প্রস্তাব সাদরে গ্রহণ করছে এবং পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে তারা কাজ করতে আগ্রহী। অর্থ হস্তান্তরকারী অনলাইন প্লাটফর্ম পেপ্যাল-জুমের (Xoom) সাথে পৃথক আরেকটি বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী পলক পেপ্যাল-জুমকে বাংলাদেশে তাদের কার্যক্রম দ্রুত শুরুর আহবান জানালে পেপ্যাল-জুম কর্তৃপক্ষ শীঘ্রই বাংলাদেশে কার্যক্রম শুরু হবে বলে প্রতিমন্ত্রীকে অবহিত করেন। পেপ্যাল-জুমের ক্যালিফোর্নিয়াস্থ সদর দপ্তরে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে পেপ্যাল-জুম প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন প্রতিষ্ঠানটির চীফ মার্কেটিং অফিসার, বিজনেস ডেভেলপমেন্ট, জুলিয়ান কিং (Julian King)| সফরকালে প্রতিমন্ত্রী পলক সিলিকন ভ্যালী-ভিত্তিক আমেরিকান ও প্রবাসী বাংলাদেশী শতাধিক উদ্যোক্তাদের সাথে ‘ইনভের্স্টস মিট’ শীর্ষক এক মত-বিনিময় অনুষ্ঠানে অংশ নেন। এ সময় প্রতিমন্ত্রী Digital Bangladesh: Story of Transformation শীর্ষক এক পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনে বাংলাদেশে প্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগ পরিবেশ, সরকার প্রদত্ত সুযোগ-সুবিধা তুলে ধরেন। উদ্যোক্তারা এ সময় বাংলাদেশে

প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিদের সাথে প্রতিমন্ত্রী পলকের বৈঠক, গুগল মার্চেন্ট একাউন্ট চালুর উদ্যোগ, ফেসবুক ডেভেলর্পাস কনফারেন্সে নির্বাচিত স্টার্ট-আপদের জন্য সুযোগ সৃষ্টি, শীঘ্রই শুরু হবে পেপ্যাল-জুম এর কার্যক্রম প্রযুক্তি দুনিয়ার আতুড় ঘর বলে খ্যাত যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালীতে ব্যাপক সাড়া জাগালেন বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদ পলক। পলক সম্প্রতি সিলিকন ভ্যালীতে শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিদের সাথে একাধিক বৈঠকে মিলিত হওয়ার পর দেশে ফিরে এ সংক্রান্ত তথ্য জানান। প্রতিমন্ত্রী পলক মার্চের ৩১ তারিখ থেকে এপ্রিলের ২ তারিখ পর্যন্ত সিলিকন ভ্যালীতে ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া বার্কলে, ফেসবুক, গুগল, নুয়ান্স কমিউনিকেশন্স, পেপ্যাল-জুমসহ একাধিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের সাথে আলাদা আলাদা দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হন। ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া বার্কলে(ইউসি বার্কলে/ University of California, Berkeley) এর কলেজ অব ইঞ্জিনিয়ারিং এর ডিন, এস শংকর শাস্ত্রী (S. Shankar Sastry) নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দলের সাথে প্রতিমন্ত্রী পলকের নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দলের দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয় বিগত ৩১ মার্চ। বৈঠকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ ইউসি বার্কলে’র ইনোভেশন ফর ফিউচার হাব এ অংশীদারিত্বের আগ্রহ প্রকাশ করলে ইউসি বার্কলে তাতে সম্মতি প্রদান করেন। এছাড়াও, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং ইউসি বার্কলে দু’পক্ষই গবেষণা ও উন্নয়ন, ডেটা এনালাইটিক্স ইত্যাদি খাতে ‘নলেজ পার্টনার’ হিসেবে কাজ করতে এবং প্রযুক্তি স্থানান্তরে পারস্পরিত অংশীদার হতে ঐকমত্য পোষণ করেন। পলকের নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দল পরে গুগলের উইলসন এল হোয়াইট( Wilson L. White), সিনিয়র কাউন্সিল, পাবলিক পলিসি’র নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দলের সাথেও এক দ্বি-বৈঠকে মিলিত হন। বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী পলক গুগল প্রতিনিধি দলকে অবহিত করে বলেন, বাংলাদেশী তরুণ-তরুণীরা প্রযুক্তি খাতে বিশেষত ডেভেলপার হিসেবে সুনামের সাথে কাজ করলেও বাংলাদেশে গুগল মার্চেন্ট একাউন্ট (Google Merchant Account) চালু না থাকার ফলে তারা তাদের আয়কৃত অর্থ স্থানান্তর করতে পারছে না। তিনি এ সময় বাংলাদেশে গুগল মার্চেন্ট একাউন্ট চালুর আহবান জানান এবং গুগল কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ও যথাযথ উদ্যোগ নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। বৈঠকে গুগলের সিনিয়র কাউন্সিল উইলসন এল হোয়াইট প্রতিমন্ত্রী পলককে অবহিত করে বলেন, গুগল বাংলাদেশে গুগল লঞ্চপ্যাড( Google Launchpad) ও গুগল ফর অন্ট্রাপ্রেনিওর ( Google for Entrepreneurs) কার্যক্রম চালু করতে আইসিটি ডিভিশনের সাথে সহযোগী হিসেবে কাজ করতে আগ্রহী। এ সময় উভয় পক্ষ বাংলাদেশী স্টার্ট-আপদের জন্য গুগলের স্টার্ট-আপ টুল্সগুলো বিনামূল্যে ব্যবহারের সুযোগ করে দিতে এবং সরকারের ইনোভেশন ডিজাইন এন্ড অন্ট্রাপ্রেনিওরশীপ একাডেমী(আইডিয়া) প্রকল্পে প্রয়োজনীয় কারিগরি সহযোগীতা বিনিময়ে সম্মত হন। পরে গুগলে কর্মরত বাংলাদেশী গুগলারদের (গুগল কর্মীদের গুগলার হিসেবে সম্বোধন করা হয়) সাথে পলক একান্ত আলাপচারিতায় মিলিত হন। এ সময় বাংলাদেশী গুগলাররা ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মযজ্ঞের সাথে একযোগে কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন এবং প্রতিমন্ত্রী গুগলারদেরকে মাতৃভূমির প্রতি তাদের অনুরক্তির জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। এদিকে প্রতিমন্ত্রী পলক ফেসবুকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইমি আর্চিবং (Ime Archibong) এর নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দলের সাথে নির্ধারিত দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হন। ফেসবুক ভাইস প্রেসিডেন্ট ইমি আর্চিবং বৈঠকে প্রতিমন্ত্রীকে জানান, ‘ফেসবুক এ্যাড বিলিং’ ব্যাংকিং চ্যানেলে লেনদেনে তারা কাজ করছে। এ সময় এফ-কমার্স(ফেসবুক কমার্স), ডিজিটাল মার্কেটিং প্রমোশন ও আইডিয়া প্রকল্পে পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করতে দু’পক্ষ মতৈক্যে পৌঁছান। এছাড়াও, ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশী জনপ্রতিনিধিদের একাউন্ট ভেরিফাই করতে সার্বিক সহযোগিতা প্রদানের অঙ্গীকার ব্যক্ত করে এবং বাংলাদেশের সরকারি অফিসগুলোতে ফেসবুক ওয়ার্কস্পেস চালু, নির্বাচিত দেশীয় স্টার্ট-আপদের ফেসবুক ডেভেলর্পাস কনফারেন্সে অংশগ্রহণের সুযোগ প্রদান এবং আগামী মে মাসে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ‘সোস্যাল মিডিয়া এক্সপো’-তে পার্টনার হওয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করে। অ্যাপল ও স্যামসং এর ভাষা গবেষণা সহযোগী বহুজাতিক সফটওয়্যার উন্নয়নকারী প্রতিষ্ঠান ‘নুয়ান্স কমিউনিকেশন্স’ (Nuance Communications) এর প্র্রতিনিধি দলের সাথে আলাদা বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী পলক ন্যাচারাল ল্যাঙ্গুয়েজ প্রসেসিং, স্ক্রীন রিডিং, স্পিচ-টু-টেক্সট, টেক্সট-টু-স্পিচ, বাংলা করপাস নিয়ে কাজ করার আহবান জানালে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ও সিইও পল রিচি (Paul Ricci) জানান, নুয়ান্স কমিউনিকেশন্স উল্লেখিত কাজে আইসিটি ডিভিশনের সাথে একযোগে কাজ করার প্রস্তাব সাদরে গ্রহণ করছে এবং পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে তারা কাজ করতে আগ্রহী। অর্থ হস্তান্তরকারী অনলাইন প্লাটফর্ম পেপ্যাল-জুমের (Xoom) সাথে পৃথক আরেকটি বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী পলক পেপ্যাল-জুমকে বাংলাদেশে তাদের কার্যক্রম দ্রুত শুরুর আহবান জানালে পেপ্যাল-জুম কর্তৃপক্ষ শীঘ্রই বাংলাদেশে কার্যক্রম শুরু হবে বলে প্রতিমন্ত্রীকে অবহিত করেন। পেপ্যাল-জুমের ক্যালিফোর্নিয়াস্থ সদর দপ্তরে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে পেপ্যাল-জুম প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন প্রতিষ্ঠানটির চীফ মার্কেটিং অফিসার, বিজনেস ডেভেলপমেন্ট, জুলিয়ান কিং (Julian King)| সফরকালে প্রতিমন্ত্রী পলক সিলিকন ভ্যালী-ভিত্তিক আমেরিকান ও প্রবাসী বাংলাদেশী শতাধিক উদ্যোক্তাদের সাথে ‘ইনভের্স্টস মিট’ শীর্ষক এক মত-বিনিময় অনুষ্ঠানে অংশ নেন। এ সময় প্রতিমন্ত্রী Digital Bangladesh: Story of Transformation শীর্ষক এক পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনে বাংলাদেশে প্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগ পরিবেশ, সরকার প্রদত্ত সুযোগ-সুবিধা তুলে ধরেন। উদ্যোক্তারা এ সময় বাংলাদেশে

Read More »